ধর্মপাশায় কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

Tuesday, October 13th, 2020

গিয়াস উদ্দিন রানা,ধর্মপাশা(সুনামগঞ্জ)::  সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলা কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়েও ঋণ না দেওয়ায় গতকাল সোমবার মৎস্য সুরে আলম ওই ব্যাংক ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে ধর্মপাশা উপজেলা প্রেসক্লাবে এক সংসাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, অভিযোগ কারি সদর উপজেলার আতকাপাড়া গ্রামের হাজী মোঃ চাঁন মিয়ার ছেলে মোঃ সুরে আলম। তার লিখিত বক্ত্যবে বলেন, তার ৭টি পুকুরে মৎস্য আহরন করতে গিয়ে একে একে কয়েক বারের বন্যায় পুকুরের পার ডুবে কয়েক লাখ টাকার মাছ ছলে যায়। এসব ক্ষতিগ্রস্ত খামারিদের সরকার প্রণোদনা ঋণের ব্যবস্থা করেছেন বিধায় বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ধর্মপাশার ব্যবসাথাপক রিপন মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি তার সহকারিকে নিয়ে সরজমিনে পরিদর্শন করে আমাকে ৩ লাখ টাকা ঋণ দিবেন বলে ২০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি করেন। এতে আমি ধার করে ১০ হাজার টাকা ব্যাংক ব্যবস্থাপকে দেই। বাকী ১০ হাজার টাকা ঋণ হওয়ার পর দিয়ে দিব। তিনি বলেন, সিআইবি আসলে পরিদর্শক বিকাশ রঞ্জন তালুকদারকে ঋণের সুপারিশ করতে বলেন। যথারিতি সিআইবি আসলে আমার পিতা হাজী চাঁন মিয়া ও আমার যৌথ নামে বিকাশ রঞ্জন তালুকদার ২১/৯/২০২০ ইং ঋণ দিতে সুপারিশ করেন।

ঋণ নং-১৩/২০/২১ মূলে নথি নাম্বারে পুকুরে মৎস্য চাষ খাতে ২৩//৯/২০২০ তারিখে ৩ লাখ টাকা ঋণের জন্য সুপারিশ করেন। ঘুষের বিষয়টি বিকাশ রঞ্জন তালুকদারকে জানানোর পর তিনি বলেন যা দিবার দিয়েছেন আর ঘুষ দিবেন না। এ বিষয়টি ব্যবস্থাপক রিপন মিয়া জানার পর ঋণ গ্রহিতা সুরে আলমকে দমক দিয়ে বলেন টিক আছে পরবর্তীতে যোগাযোগ করুন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, ধর্মপাশা উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি জুবায়ের পাশা হিমু, সিনিয়র সহ সভাপতি গিয়াস উদ্দিন রানা, সাধারন সম্পাদক এনামুল হক এনাম,সালেহ্ আহমেদ, সেলিম আহমেদ, মোবারক হোসেন, সোহানুর রহমান সোহান ও ফারুক আহমেদ প্রমুখ।
অভিযোক্ত কৃষি ব্যাংক ব্যবস্থাপক রিপন মিয়ার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে নীতিমালা অনুযায়ী ঋণ দিতে হয়। আমি ই”ছা করলেইতো ঋণ দেওয়া যায় না। কর্তৃপক্ষের মতামতেরও প্রয়োজন হয়।