বরিশালের হিজলায় গৃহবধূকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে মামলা দায়ের

Thursday, June 25th, 2020

হিজলার বিভিন্ন মোড়ে ইমার হত্যার বিচার চেয়ে ব্যানার।                                              ছবি-ফেইসবুক থেকে নেয়া

মো: মামুন হোসাইন হিজলা থেকে ফিরে।। বরিশালের হিজলা উপজেলা বড়জালিয়া ইউনিয়নের(টেকের বাজার) এলাকায় ইসরাত জাহান ইশা দুই সন্তানের জননী কে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

গত ১১ জুন বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে ইসরাত জাহান ইমা স্বামী মহসিন রেজা ও ২ বছরের পুত্র সন্তান আবিরকে নিয়ে নিজ বাসভবনে তিন তলায় বাসায় বসবাস করে । ওই সময় স্বামীর পরকিয়া নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে মারধর করে স্বামী মহসিন রেজা এসময় ইমা অসুস্থ্য হয়ে ফ্লোরে পড়ে যায় এসময় স্বামী মহাসিন রেজা কোন উপায় না পেয়ে এক পর্যায়ে রান্না ঘরে চুলায় ডিম ভাজার খোলার উপরে ডিম রেখে গ্যাস চালু করে ফ্লোরে পড়ে খাকা ইমার শরীলের ওড়নার এক অংশে আগুন লাগিয়ে দেয় স্বামী।

যখন ইমার শরীলে আগুন দাও-দাউ করে জ্বলে তখন স্বামী রেজা চিৎকার করে বলে গ্যাসের আগুনে ডিম ভাজার সময় তার স্তীর শরীলে আগুন লেগে যায় তাকে বাচানোর জন্য চিৎকার করে পরে স্বানীয়রা ও স্বামী রেজা প্রথমে হিজলায় হাসপাতালে ইমাকে নেওয়া হলে কর্মরত চিকিৎসক তার শরীলের অবস্থ্যা দেখে ঢাকায় রেফার করে । এ সময় স্বামী রেজা ইমাকে ঢাকায় নিতে ঘরিমছি করে পরে ইমার পরিবার এগিয়ে এলে তখন রেজা ঢাকায় নিতে রাজি হয়। এই ঘটনা বর্ননা করে বলেন ইমার ভগ্নিপিত নোমান হোসাইন।এলাকা সুতে জানা যায়-রুমের মধ্যে আগুন, স্বামী সন্তান বেঁচে গেলেও মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পায়নি গৃহিণী ইসরাত জাহান ইমা এ নিয়ে চলছে নানা মহলে নানা গুঞ্জন।এছাড়াও হিজলা থানার সচেতন মহলের ব্যানারের রেজার ফাসির দাবি করে এলাকার বিভিন্ন মোড়ে ব্যানার ঠানানো হয়।

স্থানীয়রা জানায়, খুন্না গোবিন্দপুর গ্রামের দেলোয়ার হোসেন বেপারীর পুত্র মহসিন রেজা হরিনাথপুর ইউনিয়ন এর শফিকুল ইসলামের কন্যা ইসরাত জাহান ইমা কে বিয়ে করে র্দীঘ দিন ঘর সংসার করে আসছে । মহাসিন রেজা ও তার বাবা হিজলা উপজেলা টেকের বাজারের মুদি ব্যবসায়ী। মহসিন রেজা তার এক আত্নীয়র পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এর পর থেকে ইমার সংসারে অশান্তির লেগে যায়। এই পরকিয়ার ঘটনা
মহসিনের পরিবারের সবাই জানতো কারণ এ বিষয় নিয়ে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া ঝাটি লেগেই থাকত।
বাসা পাশ্বে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক জন মহিলা জানায়- রুমের মধ্যে যদি আগুন লাগে তাহলে রুমের সবকিছু পুড়ে যাবে সেখানে শুধু মহসিন এর স্ত্রী ৯০ভাগ পুড়ে শেষ হলো সন্তান আবির ও স্বামী মহসিন এর কিছুই হলো না এমনকি তিনতলার অনেকের ডাক চিৎকার শুনে নীচতলার ব্যবসায়ীরা উপরে উঠতে চাইলে মহসিন তাদেরকে বাসায় ঢুকতে দেয়নি।

মহসিন পরিকল্পিত ভাবেই তার স্ত্রীকে হত্যা করেছে কারণ রুমের মধ্যে গ্যাস সিলিন্ডার থেকে আগুন লাগলে সই রকম কোন আলামত দেখা যায়নি।

মৃত্যুর আগে নিহত ইসরাত জাহান ইমা তার মা ইয়াসমিন বেগম ও তার চাচাতো ভাই আসাদুল্লাহ এর নিকট মৃত্যুর বিবরণ দেয় আমার স্বামী আমার ওড়নায় আগুন লাগিয়ে আমার ছেলেও স্বামী রুম থেকে বের হয়ে যায়। এই কথাগুলো মোবাইলে রেকট করে রাখে ইমার পরিবার।

২১ জুন নিহতের বাবা শফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মহসিন রেজা, তার বড় ভাই মোস্তফা, বাবা দেলোয়ার হোসেন বেপারী ও পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়া নারী শাহনাজ সহ ৫ জনের নাম উলেখ করে হিজলা থানায় একটি মামলা দায়ের করে ‌।

হিজলা থানার অফিসার ইনচার্জ অসীম কুমার সিকদার নিকট ইসরাত জাহান ইমার মৃত্যুর বিষয় সাংবাদিকদের তিনি জানায় ১১ সেকেন্ডের একটি ভিডিও নিহত ইসরাত জাহান ইমা মৃত্যুর আগে ভিডিও রেকর্ডিং করে গেছে তদন্ত পূর্বক দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানায় ।