ফেঁসে যাচ্ছেন মিলা!

Tuesday, July 9th, 2019
  •  বিজয় নিউজ বিনেদন।। মিলা ইসলাম সাবেক স্বামী পারভেজ সানজারীর শরীরে অ্যাসিড নিক্ষেপের মামলায় এবার ফেঁসে যাচ্ছেন সঙ্গীতশিল্পী মিলা। তার ব্যক্তিগত দেহরক্ষী কিম জন পিটার হালদার মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে মিলার জড়িত থাকার সমস্ত ঘটনার বিশদ বর্ণনা দিয়েছেন। বলেছেন মিলার নির্দেশেই পারভেজ সানজারীর শরীরে অ্যাসিড নিক্ষেপ করেছিলেন তিনি। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, স্বীকারোক্তিতে কিম বলেছেন, মিলা আপুর মিউজিক রোবোট ব্যান্ডের দলে দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে মালামাল বহন করতাম। এরপর ৩ বছর ধরে মিলা আপুর ব্যক্তিগত দেহরক্ষী হিসেবে সঙ্গে আছি। গত ২৫ মে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মিলা আপু কান্না করে বলেন, সানজারী আমার জীবনটা নষ্ট করেছে। এ সময় মিলা আপুর সঙ্গে পরামর্শ করি সানজারীর গোপনাঙ্গে অ্যাসিড দেব। ওই দিনই (২৫ মে) সন্ধ্যাবেলায় মিরপুর ডিওএইচএস সরকার মার্কেটে হার্ডওয়্যারের দোকান থেকে অ্যাসিড কিনে এনে একটি কাচের কৌটাতে ঢেলে ব্যাগের মধ্যে রাখি। পরে ২ জুন বিকেলে সানজারীর বাসার সামনে যাই। ইফতারের পর আনুমানিক সাড়ে ৭টা দিকে সানজারী মোটরসাইকেল নিয়ে বাসা থেকে বের হলে ডাক দেই। পরে মোটরসাইকেলের সামনে দাঁড়িয়ে দ্রুত কৌটা থেকে অ্যাসিড বের করে তার গায়ে ঢেলে দিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যাই। এ ঘটনার পর মিলা আপুকে ফোন করে বিস্তারিত জানাই। তখন মিলা আপু আমাকে পালিয়ে যেতে বলে। প্রসঙ্গত, গত ২ জুন সন্ধ্যায় মোটরসাইকেলযোগে যাওয়ার সময় বাসার সামনের সড়কে অ্যাসিড হামলার শিকার হন মিলার সাবেক স্বামী সানজারী। এর পরের দিন অর্থাৎ ৩ জুলাই ক্যান্টনমেন্টের ভেতর মিলার বন্ধু টুকুন খানের বাসা থেকে কিমকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। ৪ জুন অ্যাসিড দমন আইনে গায়িকা মিলার বিরুদ্ধে উত্তরা পশ্চিম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন পারভেজ সানজারীর বাবা এস এম নাসির উদ্দিন। সেই মামলার এজাহারে মিলা এবং তার সহকারী পিটার কিমকে অভিযুক্ত করা হয়।