আবহাওয়া অনুকূলে, বাড়বে ইলশিরে চালান

Wednesday, July 3rd, 2019

স্টাফ রিপোর্টার :
মৌসুমরে এই সময়ে ইলশিে সয়লাবরে চত্রি থাকলওে দক্ষণিরে ইলশিরে সবচয়েে বড় মোকাম বরশিালরে র্পোট রোডে বসেরকারি মৎস্য অবতরণ কন্দ্রেে তমেন একটা চাপ নইে। যতটুকু আসছে তাও আশপাশরে নদ-নদী থকেে আরোহণকৃত স্বল্প পরমিাণরে ইলশি।

কারণ হসিবেে ব্যবসায়ীরা অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে কাঙ্ক্ষতি ইলশি না পাওয়া এবং সাগরে সব ধরনরে মাছ শকিারে ৬৫ দনিরে নষিধোজ্ঞাকে দায়ী করছনে। যদওি মৎস্য বভিাগ বলছে র্বতমানে আবহাওয়া ইলশি শকিাররে জন্য অনুকূলে রয়ছে,ে যে আবহাওয়ায় নদ-নদীতে ইলশিরে উপস্থতিি বড়েে যায়। ফলে স্থানীয় বাজারগুলোর র্বতমান অবস্থা অল্প সময়রে মধ্যইে পরর্বিতন ঘটব।ে

বরশিাল জলো মৎস্য অফসিরে র্কমর্কতা (হলিসা) ড. বমিল চন্দ্র দাস বলনে, কয়কেদনি আগওে প্রচণ্ড গরম ও নদীতে পানি কম ছলিো। ফলে সাগররে মাছ নদীতে তমেনভাবে আসতে পারনে।ি তবে ২/১ দনি ধরে যভোবে বৃষ্টপিাত হচ্ছে এবং নদীতে পানরি পরমিাণ যভোবে বড়েছেে তাতে এখনই সময় নদ-নদীতে প্রচুর ইলশি ধরা পড়ার।

তনিি আশা প্রকাশ করে বলনে, ২/১ দনিরে মধ্যইে অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতওে প্রচুর ইলশি ধরা পড়ব।ে তখন জলে,ে আড়তদার ও শ্রমকিদরে যমেন র্কমব্যস্ততা বাড়ব,ে তমেনি মুখওে হাসি ফুটব।ে

এ বছরও প্রচুর ইলশি ধরা পড়বে আশা প্রকাশ করে তনিি বলনে, আগামী ২৩ জুলাই (মঙ্গলবার) সাগরে সব ধরনরে মাছ শকিাররে ৬৫ দনিরে নষিধোজ্ঞা শষে হব।ে এরপর আশা করি ইলশিরে কোনো সংকট থাকবে না।

এদকিে পাইকারি মোকাম থকেে শুরু করে খুচরা বাজারে ইলশিরে সরবরাহ কম থাকায় দাম কছিুটা চড়া বলে জানয়িছেনে ক্রতোরা। ফলে ইলশি থকেে মুখ ফরিয়িে দশেীয় চাষরে মাছই কনিছনে তারা। বাজারে যটেুকু ভড়ি রয়ছেে তা সংগ্রহ করা সাগররে পোমা, নদ-নদীর আইড়-পাঙ্গাস, চংিড়ি নয়তো চাষরে মাছরে জন্য।

আর ইলশি কম থাকায় র্পোট রোডরে বসেরকারি মৎস্য অবতরণ কন্দ্রেগুলোতে তমেনভাবে নইে কোনো র্কমব্যস্ততা। অনকে শ্রমকিই দনিরে বশেরিভাগ সময় অলস কাটাচ্ছনে।

শ্রমকিরা জানান, প্রতবিছর জুলাই থকেে অক্টোবর র্পযন্ত ৪ মাস প্রচুর ইলশি পাওয়া যায়। ফলে এ সময়টাতে শত শত মণ ইলশিে প্রতদিনিই র্কমব্যস্ত থাকে অবতরণ কন্দ্রেট।ি কন্তিু এবার তার ভন্নি চত্রি। নদ-নদীতে এখন র্পযন্ত কাঙ্ক্ষতি ইলশিরে দখো মলেনে,ি আবার সাগরওে নষিধোজ্ঞা থাকার কারণে অনকেটা ঝমিয়িে পড়ছেে অবতরণ কন্দ্রেট।ি

খুচরা ব্যবসায়ী সলেমি বলনে, গত বছর এমন সময়ে ভোর থকেে বকিলে র্পযন্ত অবতরণ কন্দ্রেে ইলশি নয়িে ব্যস্ত থাকতনে শ্রমকি-ব্যবসায়ীরা। কন্তিু এখন যে ইলশি আসছে তাতে সকাল ১০টার পরই র্কমব্যস্ততা ঝমিয়িে পড়ছ।ে

পাইকারি ব্যবসায়ী মো. নাসরি উদ্দনি বলনে, যখোনে হাজার মণরে কাছাকাছি ইলশি আশা করা হয় বরশিালরে মোকামে সখোনে অভ্যন্তরীণ নদী এবং সাগর মোহনায় জলেদেরে জালে ধরা পড়া ৫০ থকেে ৬০ মণরে বশেি ইলশি আসছে না বরশিালরে মােকাম।ে যদওি দুই দনি আগে এর থকেে কছিুটা বশেি ইলশিরে আমদানি হয়ছেলিো।

এদকিে জলেরো বলছনে, নষিধোজ্ঞার কবলে পড়ে নদী-সাগরে আগরে মতো মাছ শকিার করতে পারছনে না তারা। তারা জানান, জাটকা শকিার বন্ধে প্রতি বছর ৮ মাসরে নষিধোজ্ঞা রয়ছে।ে এছাড়া অভয়াশ্রমে ২ মাস এবং মা ইলশিরে ডমি নরিাপদ প্রজননরে জন্য ২২ দনিরে নষিধোজ্ঞা রয়ছে।ে তার ওপর এবার নতুন করে সমুদ্রে মাছ শকিার ৬৫ দনিরে নষিধোজ্ঞা জারি করা হয়ছে।ে

যদওি মৎস্য বভিাগ বলছ,ে এ নষিধোজ্ঞার পর যে সময় থাকে তাতে প্রচুর ইলশি যমেন ধরা পড়ছে জলেদেরে জাল,ে তমেনি ইলশিরে আকারও ভালো পাওয়ায় দাম বশেি পাচ্ছনে জলেরো।

বুধবার বরশিালরে মোকামে ৬শ’ থকেে ৯শ’ গ্রাম (এলস)ি ওজনরে ইলশি মণপ্রতি ৪৩ হাজার টাকায়, আর এর নচিরে ওজনরে (ভলেকা) ৩০ হাজার টাকায় মণপ্রতি বক্রিি হয়ছে।ে এছাড়া এক কজেি ওজনরে ইলশি মণপ্রতি ৫৫ হাজার, দড়েকজেরি ইলশি মণপ্রতি ১ লাখ ১০ হাজার টাকা দরে বক্রিি হয়ছে।ে তবে সবথকেে ছোট যটেি স্থানীয় ভাষায় গোটলা বলা হয় সটেি মাত্র ২৪ হাজার টাকায় মণপ্রতি বক্রিি হচ্ছ।ে