বরিশালের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ

Wednesday, July 3rd, 2019

উম্মে রুম্মান :
অমাবশ্যার প্রভাবে বরিশাল নগরীসহ জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বরিশাল নগরীসহ জেলার হিজলা, মুলাদী, বাবুগঞ্জ ও মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার চরাঞ্চল জোয়ারের সময় কমপক্ষে তিনফুট পানির নিচে তলিয়ে যায়। ভাটার সময় উচু এলাকার পানি নেমে গেলেও এসব এলাকার চরাঞ্চল পানিতে ডুবে আছে।
হঠাৎ করে পানিতে এলাকা ডুবে যাওয়ায় মানুষ দুর্ভোগে পড়েছে। রা¯Íাঘাটেও পানিতে জলাবদ্ধতার সৃস্টি হয়েছে।
বরিশাল আবহাওয়া অফিসের পর্যবেÿক বেলøাল হোসেন বলেণ, নি¤œচাপের কারনে সাগরে ৪ নম্বর সতর্কতা ও নদীবন্দরে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। একারনেই নি¤œাঞ্চল নিমজ্জিত হতে পারে বলে তিনি জানান।
পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) বরিশালের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ আবু সাঈদ জানান, মঙ্গলবার বিকেলে কীর্তনখোলা নদীর পানি বিপদসীমা অতিক্রম করেনি। তবে গতকাল বরিশালের বিভিন্ন নদীতে ২দশমিক ৩২ সেন্টিমিটার পানি প্রবাহিত হয়। আর এই জোয়ারের পানি প্রবাহিত হওয়ায় নগরীর ১২ নম্বর ওয়ার্ডের খ্রিষ্টান পাড়া, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের জিয়ানগর, রুপাতলী, আমানতগঞ্জ, পলাশপুর, রসুলপুর, মোহাম্মদপুরসহ জেলার নি¤œাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার পাকা সড়ক হাটু সমান পানিতে প্লাবিত হয়েছে। ফলে চরম দুর্ভোগে পরতে হয়েছে যান বাহন ও পথচারিদের।
স্থানীয় সুত্রগুলো জানিয়েছে, মঙ্গলবার বিকাল থেকে কীর্তণখোলায় অস্বাভাবিক জোয়ারের কারনে নগরীর ২৪ নংওয়ার্ডের জিযানগর, রুপাতলী, চাদমারি, রসুলপুর, স্টেডিয়ায়ামের পেছনের অংশ, পাউবোর দপ্তরের একাংশ, চাঁদমারী, নবগ্রাম সড়ক, বেলতলা, পলাশপুর এলাকা এবং সদর উপজেলার শায়ে¯Íাবাদ ও চরবাড়িয়া ইউনিয়নের অধিকাংশ এলাকা প্লাবিত হয়েছে।
চরবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষশদের চেয়ারম্যন মাহতব উদ্দিন সুরুজ জানান, চরবাড়িয়া ইউপির চরআবদানী, রাঢ়ীমহল, উত্তর ও দÿিন লামচরী এলাকায় হাটুসমান পানি উঠেছে। ওইসব গ্রামের বাসিন্দারা কেউ চুলায় রান্না করতে পারছে না।
শায়ে¯Íাবাদ ইউনিয়নের আরিফুর রহমান মুন্না জানান, শায়ে¯Íাবাদের পানবাড়িয়া, চরহবিনগর, হায়াতনগর, কোদালিয়া ও চররাজাপুর গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। শতাধিক পরিবারের বসতঘর মেঝেতে পানি ঢুকেছে।