তুমুল উত্তেজনায় অ্যাশেজ থাকল অস্ট্রেলিয়ার হাতেই

Monday, September 9th, 2019

হেডিংলে টেস্টের শেষ দিনের মতো না-হলেও উত্তেজনার অভাব ছিল না ম্যাঞ্চেস্টারে চলতি অ্যাশেজ সিরিজের চতুর্থ টেস্টে৷ লিডসকে টেল এন্ডারদের নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মুখের গ্রাস ছিনিয়ে নিয়েছিলেন বেন স্টোকস৷ প্রায় জেতা ম্যাচে হারতে হয়েছিল অজিদের৷ ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আরো একবার অস্ট্রেলিয়াকে হতাশ করার উপক্রম করেছিল ইংল্যান্ডের লোয়ার অর্ডার৷ তবে শেষ রক্ষা হয়নি ব্রিটিশদের৷ রোববার দিনের শেষ ঘণ্টায় কাঙ্খিত জয় তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া৷

প্রথম ইনিংসের নিরিখে ১৯৬ রানে পিছিয়ে থাকা ইংল্যান্ডের সামনে শেষ ইনিংসে জয়ের লক্ষ্য ছিল ৩৮৩ রানের৷ চতুর্থ দিনের শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ১৮ রান তুলেছিল তারা৷ শেষ দিনে একেবারে শেষ ঘণ্টা পর্যন্ত লড়াই চালায় ব্রিটিশরা৷ শেষমেশ ১৩ ওভার বাকি থাকতে ইংল্যান্ড অল-আউট হয়ে যায় ১৯৭ রানে৷ ১৮৫ রানের বড় ব্যবধানে ম্যাচ জিতে ৫ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ২-১ ব্যবধানে এগিয়ে যায় অস্ট্রেলিয়া৷

অর্থাৎ সিরিজের বাকি একটি টেস্টে হারলেও সিরিজ খোয়াতে হবে না অস্ট্রেলিয়াকে৷ যার অর্থ গতবারের চ্যাম্পিয়ন হিসাবে অ্যাশেজের ট্রফি অস্ট্রেলিয়া আপাতত নিজেদের দখলেই রেখে দিল৷

শেষ দিনে ইংল্যান্ডের হয়ে প্রতিরোধ গড়েন জো ডেনলি৷ তিনি দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৫৩ রান করে আউট হন৷ জেসন রয় করেন ৩১ রান৷ বেন স্টোকস মাত্র ১ রান করে আউট হন৷ বেয়ারস্টো ২৫ রান করে প্যাভিলিয়না ফেরেন৷ জোস বাটলার ১১১ বলে ৩৪ রান করে ম্যাচ বাঁচানোর লড়াই শুরু করেন৷ ওভার্টন ১০৫ বলে ২১ রান করে সেই লড়াই জারি রাখেন আরও কিছুক্ষণ৷ জোফ্রা আর্চার মাত্র ১ রান করে ক্রিজ ছাড়েন৷ জ্যাক লিচ ৫১ বলে ১২ রান করে ম্যাচ বাঁচানোর শেষ চেষ্টা করেছিল বটে, তবে পার্টটাইমার ল্যাবুশানের বলে আউট হতেই ইংল্যান্ডের যাবতীয় আশা-ভরসা শেষ হয়ে যায়৷

দ্বিতীয় ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ৪৩ রানে ৪টি উইকেট দখল করেন প্যাট কামিন্স৷ ২টি করে উইকেট নেন হ্যাজেলউড ও লায়ন৷ ১টি করে উইতেট স্টার্ক ও ল্যাবুশেনের৷ প্রথম ইনিংসে দুরন্ত ডাবল সেঞ্চুরি ও দ্বিতীয় ইনিংসে অনবদ্য হাফ-সেঞ্চুরি করা স্টিভ স্মিথ ম্যাচের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হন