ধর্মপাশায় কৃষি ব্যাংক ব্যাস্থাপকের,অবসারণ ও শাস্তির দাবিতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মানববন্ধন

Monday, October 5th, 2020

গিয়াস উদ্দিন রানা,ধর্মপাশা (সুনামগঞ্জ):: বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক ধর্মপাশা উপজেলা শাখার ব্যাস্থাপক রিপন মিয়ার বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতি ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধ সাবেক কমান্ডা রুহুল আমিন তালুকদার এর সাথে বেয়াদবির প্রতিবাদে ওই ব্যাংক ব্যাস্থাপকের অপসারণ ও শাস্তির দাবিতে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড এর ব্যানারে গতকাল মানববন্ধন করেছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ।

জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সহ , জনগন মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ব্যানারে মানব বন্ধনে অংশ নেন।
গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় ধর্মপাশা উপজেলা শাখা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সাবেক কমান্ডার রুহুল আমিন তালুকদার এর সাথে ব্যাংক ব্যাস্থাপক রিপন মিয়া অশুভ আচরণ ও সাদা কাগজে ঋণ পরিশোদের মুচলেকা রাখার জন্য ওই মুক্তিযোদ্ধার ওপর চাপ সৃষ্টি করা ও কৃষি ব্যাংকের ধর্মপাশা শাখা থেকে কৃষি গবাদি পশু ও মৎস্য চাষ খাতে ঋণ নিতে কৃষকদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা গ্রহনের প্রতিবাদে ওই শাখার ব্যাস্থাপকের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির ও থাকে দ্রুত অপসারনের দাবিতে মানব বন্ধন করেছেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ও সর্বস্তরের জনগন।
এানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি এম. আর . খান পাঠান, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান মোবারক হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সুজ্জাদ আহমেদ, যুগ্ন সম্পাদক হাসান আহমেদ, পাইকুরাটি ইউপি সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ নূরুজ্জামান, রিযাদ, ফারুক মিয়া, জুবাইন মিয়া প্রমুখ। মানব বন্ধন শেষে কৃষি ব্যাংক ধর্মপাশা শাখা কার্যালয়ের সামনে মানব বন্ধনে অংশ নেওয়া লোকজন ওই ব্যাংক ব্যাস্থাপকের দ্রুত অপসারণ ও শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন।
বক্তারা অভিযোগ করে বলেন কৃষি ব্যাংক ধর্মপাশা শাখার ব্যাস্থাপক রিপন মিয়া কৃষি ঋণের অযুহাতে কৃষকদের সাখে প্রতারনার মাধ্যমে ঘোষ বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
তারই ধারাবাহিকতায় গতকাল রবিবার মুক্তিযোদ্ধা সংসদ উপজেলা শাখার উদ্যোগে পূর্ণরায় মানব বন্ধন করেছেন জাতির সেষ্ট সন্তানরা।
উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সাবেক কমান্ডিার রুহুল আমিন তালুকদার সাংবাদিকদের বলেন, ওউ ব্যাংক ব্যাস্থাপকের আচরন খুবই অশুভ নিয়। এই বৃদ্ধ বয়সে তার কাছ থেকে এমন আচরন পেয়ে আমি কষ্ট পেয়েছি। যা আমি এখনো মেনে নিতে পারছি না। শুধু আমি নই এলাকার অগনিত গ্রাহকরা তার আচরনে অতিষ্ট। তিনি ঘোষ চারা কথাই বলতে রাজি নয়। তাই থাকে দ্রুত অপসারন করা না হলে আগামীতে কঠিন কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে আল্টিমেটাম দেন।
উপজেলানির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মুনতাসির হাসান পলাশ তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমিসহ আরো অনেকের উপস্থিতে ওই শাখার ব্যাস্থাপকরিপন মিয়া মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার রুহুল আমিন তালুকদার এর কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।
অভিযোক্ত ব্যাংক ব্যাস্থাপক রিপন মিয়ার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে সাংবাদিকদের বলেন, আমি কারো কাছ থেকে কোন আর্থিক সুবিধা নেইনি, এমন কোন প্রমান নেই। ওই মুক্তিযোদ্ধার সঙ্গে আমি কোন অশুভ আচরন করিনি। এর পরও তিনি আমার পিতৃতুল্য বিধায় আমার কোন ভুল করলেও তার কাছে ক্ষমা চেয়েছি।