ফ্রান্স দূতাবাস বন্ধে হেফাজতের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

Monday, November 2nd, 2020

বিজয় নিউজ:: ফ্রান্সের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নসহ দেশটির রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। একইসঙ্গে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে সংগঠনটি।

সোমবার (২ নভেম্বর) দুপুর ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচির মিছিল শেষে এ ঘোষণা দেন হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে এই সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশ শেষে ফ্রান্স দূতাবাস অভিমুখে মিছিল নিয়ে রওয়ানা করেন তারা।

পল্টন, নাইটিঙ্গেল মোড়, কাকরাইল হয়ে বেলা পৌনে ১টার দিকে শান্তিনগর মোড়ে এসে তারা পুলিশের ব্যারিকেডে আটকে যান। পরে সেখানে অবস্থান নিয়ে সমাবেশ করেন বিক্ষোভকারীরা।

সমাবেশে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, আমরা চাই আমাদের সরকার আরও ১০০ বছর থাকুক। কিন্তু আমাদের দাবি পূরণ করে ক্ষমতায় থাকতে হবে। সাংবাদিক, গোয়েন্দা বাহিনীর প্রতি শুকরিয়া আদায় করছি। আপনাদের কথা রক্ষা করে এখানেই থেমে গেলাম। প্রয়োজনে আগামী কর্মসূচিতে এখানে থামবো না। ফ্রান্সের দূতাবাসকে টুকরো টুকরো করিয়ে ছাড়বো, ইনশাল্লাহ।

এ সময় ফ্রান্সের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা, বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ করা, ফরাসি পণ্য বর্জন এবং সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করার দাবি জানান হেফাজত মহাসচিব।

সভাপতির বক্তব্যে আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, ফ্রান্সে হজরত মোহাম্মদকে (সা.) অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি প্রতিবাদ হয়েছে। অথচ সরকার নীরব। এই নীরবতার রহস্য কী, জনগণ জানতে চায়।

হেফাজত নেতারা বলেন, আজ মুসলামন ও ঈমানদের পক্ষে যদি সরকার ঐক্যমত পোষণ করে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করতে ব্যর্থ হয়, তা হলে এ দেশের জনগণ এই সরকারকে ক্ষমতায় থাকতে দেবে না। ফ্রান্স দূতাবাস বন্ধে হেফাজতের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম
যুগান্তর ডেস্ক
০২ নভেম্বর ২০২০, ০৫:১৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ
153 Shares
facebook sharing button
messenger sharing button
twitter sharing button
pinterest sharing button
linkedin sharing button
print sharing button
ফ্রান্স দূতাবাস বন্ধে হেফাজতের ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম
ছবি: বিবিসি

ফ্রান্সের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্নসহ দেশটির রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। একইসঙ্গে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়েছে সংগঠনটি।

সোমবার (২ নভেম্বর) দুপুর ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচির মিছিল শেষে এ ঘোষণা দেন হেফাজতের মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমের উত্তর গেটে এই সমাবেশ শুরু হয়। সমাবেশ শেষে ফ্রান্স দূতাবাস অভিমুখে মিছিল নিয়ে রওয়ানা করেন তারা।

পল্টন, নাইটিঙ্গেল মোড়, কাকরাইল হয়ে বেলা পৌনে ১টার দিকে শান্তিনগর মোড়ে এসে তারা পুলিশের ব্যারিকেডে আটকে যান। পরে সেখানে অবস্থান নিয়ে সমাবেশ করেন বিক্ষোভকারীরা।

সমাবেশে জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, আমরা চাই আমাদের সরকার আরও ১০০ বছর থাকুক। কিন্তু আমাদের দাবি পূরণ করে ক্ষমতায় থাকতে হবে। সাংবাদিক, গোয়েন্দা বাহিনীর প্রতি শুকরিয়া আদায় করছি। আপনাদের কথা রক্ষা করে এখানেই থেমে গেলাম। প্রয়োজনে আগামী কর্মসূচিতে এখানে থামবো না। ফ্রান্সের দূতাবাসকে টুকরো টুকরো করিয়ে ছাড়বো, ইনশাল্লাহ।

এ সময় ফ্রান্সের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করা, বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ করা, ফরাসি পণ্য বর্জন এবং সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করার দাবি জানান হেফাজত মহাসচিব।

সভাপতির বক্তব্যে আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী বলেন, ফ্রান্সে হজরত মোহাম্মদকে (সা.) অবমাননার প্রতিবাদে বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি প্রতিবাদ হয়েছে। অথচ সরকার নীরব। এই নীরবতার রহস্য কী, জনগণ জানতে চায়।

হেফাজত নেতারা বলেন, আজ মুসলামন ও ঈমানদের পক্ষে যদি সরকার ঐক্যমত পোষণ করে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করতে ব্যর্থ হয়, তা হলে এ দেশের জনগণ এই সরকারকে ক্ষমতায় থাকতে দেবে না।