মৎস্যজীবি লীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ধর্মপাশায় মানববন্ধন

Tuesday, November 17th, 2020

ধর্মপাশা(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:: ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক ও মৎস্যজীবি লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদককে জড়িয়ে ষড়যন্দ্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে ধর্মপাশায় মানববন্ধন
সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক গনমানুষের প্রিয় নেতা শামীম আহমেদ মুরাদ ও বাংলাদেশ মৎস্যজীবি লীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রেজুয়ান আলী খান আর্নিককে জড়িয়ে ওই দুই জনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা ও বানোয়াট মামলাটি দ্রুত প্রত্যাহারের দাবিতে গতকাল সোমবার সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন সড়কে এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জাতীয় যুব মহিলালীগ, মৎস্যজীবি লীগ ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ এলাকার গন্যামান্য ব্যক্তিবর্গ মানববন্ধনে অংশ নেন।
সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জুবায়ের পাশা হিমুর পরিচালনায় মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক রুহুল আমীন তালুকদার, কৃষক লীগের যুগ্ন আহবায়ক সুলতান আহমদ তালুকদার, উপজেলা সদর ইউপি চেয়ারম্যান সেলিম আহমেদ, জাতীয় শ্রমিক লীগের উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক রোকন উদ্দিন বেপারী, যুবলীগের সহ সভাপতি এম.আর খান পাঠান, ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক আল আমিন খান প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক শামীম আহমেদ মুরাদ ও বাংলাদেশ মৎস্যজীবি লীগের কেন্দ্রী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক রেজুয়ান আলী খান আর্নিক তারা আওয়ামী লীগ পরিবারের সন্তান। নিজ নিজ এলাকায় অত্যন্ত জনপ্রিয়। গত ১১নভেম্বর ঢাকার একটি আদালতে ওই দুজনকে জড়িয়ে এক নারীকে ধর্ষনের চেষ্টায় জড়িত থাকার যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনাটি উল্লেখ করা হয়েছে চলতি বছরের ১ নভেম্বর। ওই দিন শামীম আহমেদ মুরাদ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সুনামগঞ্জ জেলা শহরে ছিলেন। আর রেজুয়ান আলি খান ওই দিন সকাল ১০টা থেকে সন্ধা পর্যন্ত কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবি লীগের নেতাকর্মীদের সাথে জরুরী মিটিংয়ে ছিলেন।
এব্যাপারে সুনামগঞ্জ ১ আসনের সাংসদ মোয়াজ্জেম হোসেন রতন সাংবাদিকদের বলেন, ধর্ষনের চেষ্টার ঘটনাটি যেদিন ঘটেছে সেদিন আমি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলাম।