২৩শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

ধর্মপাশায় মাছ ধরাকে কেন্দ্রকরে প্রতিপক্ষের হামলায় আহত স্বপন

আপডেট: মে ৬, ২০২২

ধর্মপাশা(সুনামগঞ্জ)প্রতিনিধি:; সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় ভারতের সীমান্তবর্তী উত্তর বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের বাকাতলা (কান্দাপাড়া) গ্রামে মাছ ধরাকে কেন্দ্রকরে একই গ্রামের প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মোঃ ফজল হকের ছেলে স্বপন মিয়া (১৮) কে ধারালো অস্ত্রদিয়ে এলোপাথারি কূপিয়ে জখম করে। নিজেকে র্নিদোষ প্রমানের জন্য তারাই আবার থানায় উল্টো মামলা দায়ের করে বলে অভিযোগ উঠেছে।
অনুসন্ধানে গ্রামবাসী ও মধ্যনগর থানা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভারতের সীমান্তবর্তী উত্তর বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের বাকাতলা (কান্দাপাড়া) গ্রামের ফজল হকের ছেলে স্বপন মিয়া (১৮) গত ১২ এপ্রিল ২০২২ ইং রামসার টাঙ্গুয়ার হাওর কিত্তনছড়া নামে স্থানে বাইড় দিয়ে মাছ ধরতে যায়। এসময় তার প্রতিবেশী নছর উদ্দিনের ছেলে ইসলাম (৬০) ওই স্থানে বাইড় পেতে মাছ না ধরার জন্য নিষেধ করে। এতে উভয়ের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে।এক পর্যায় বিকাল ৫টায় ইসলামের সহোদর ভাইসহ ৬/৭ জন লোক এসে স্বপনকে ধরে কিল-ঘুষি দিতে থাকে। এসময় ইসলামের হাতে থাকা ধারালো দা দিয়ে স্বপনের উপর এলোপাথারি আঘাতে তার শরিল ক্ষতবিক্ষত হয়। পরে তার স্বজনরা স্বপনকে রক্তার্থ শরীর মুমূর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এর কাছে গেলে তিনি বলেন, আগে রোগী চিকিৎসা করুন পরে বিচার হবে। এর প্রেক্ষিতে ওই দিন আহত স্বপনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
প্রতিপক্ষ ঘাতক ইসলাম উদ্দিনের সাথে দেখা করার জন্য বারবার চেষ্টা করেও থাকে পাওয়া যায়নি।
এদিকে দাঙ্গাবাজ নছর উদ্দিনের ছেলে ইসলাম উদ্দিন (৬০) নিজেকে র্নিদোষ প্রমানের জন্য উল্টো সে নিজেই বাদী হয়ে গুরুতর আহত স্বপনসহ একাধিক ব্যক্তিকে আসামী করে মধ্যনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করে।
এর প্রেক্ষিতে আহত স্বপন মিয়ার পিতা ফজল হক (৬৬) বাদী হয়ে বাকাতলা (কান্দাপাড়া) গ্রামের মৃত নছর আলীর ছেলে ৫ ছেলেসহ ৭ জনকে আসামী করে মধ্যনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।
হাফেজ উদ্দিন (৬৫), ইসলাম উদ্দিন (৬০),জসিম উদ্দিন (৩০),কারিম উদ্দিন (৩২), মফিজ উদ্দিন (৬৪) একই গ্রামের হাফেজ উদ্দিনের আব্দুল মিয়া (২৮) একই গ্রামের পিতা অজ্ঞাত চাঁন মিয়া (৪৫) কে আসামী করলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেনি।
এব্যাপারে উক্ত ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ নূর নবির মোবাইল ফোনটি বদ্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। মধ্যনগর থানার অফিসার ইনর্চাজ (ও.সি) মোঃ জাহেদুল হক বলেন, উত্তর বংশীকুন্ডা ইউনিয়নের বাকাতলা (কান্দাপাড়া) গ্রামে মাছ ধরাকে কেন্দ্রকরে মারামারিরকে ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় মামলা দায়ের করেছে। আমরা তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

101 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন